মৌলভীবাজারের ১৩২টি গ্রামে পানিবন্দী মানুষ

,
প্রকাশিত : ১৪ জুন, ২০১৮     আপডেট : ৪ বছর আগে

তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে ও ভারতের থেকে নেমে আসা ঢলে মনু নদী ও ধলাই নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করে এবং বাঁধ ভেঙে মৌলভীবাজারের ৩ উপজেলার ১৩২টি গ্রামে পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন লক্ষাধিক মানুষ।

স্থানীয় প্রশাসনের সূত্রে জানা যায়, এখন পর্যন্ত বন্যায় প্লাবিত হয়েছে কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর, হাজিপুর, টিলাগাও ও পৃথিমপাশা ইউনিয়নের প্রায় ৬০টি গ্রামের অর্ধলক্ষাধিক মানুষ। রাজনগর উপজেলার কামারচাক, টেংরা ও মনসুর নগর ইউনিয়নের ৪২ টির গ্রাম। তার মধ্যে কামারচাক ইউনিয়নের প্রায় ৮০ ভাগ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর, মুন্সিবাজার ইউনিয়ন ও পৌরসভাধীন প্রায় ৩০ টি গ্রাম। কমলগঞ্জের কিছু এলাকা থেকে পানি নামলেও নতুন করে প্লাবিত হয়েছে রাজনগরের ২২ টি এবং কুলাউড়ার ৪০ টি গ্রাম। বন্যা প্লাবিত এলাকায় এখন পর্যন্ত পৌঁছায়নি ত্রাণ।

মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বন্যা কবলিত মানুষের জন্য প্রাথমিক অবস্থায় ১১৫ টন চাল ও দেড় লাখ টাকা বরাদ্ধ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এর মধ্যে কমলগঞ্জে ৪৫ টন চাল ও ৫০ হাজার টাকা, কুলাউড়াতে ৫০ টন চাল ও ৫০ হাজার টাকা, রাজনগরে ১৫ টন চাল ও ২০ হাজার টাকা এবং শ্রীমঙ্গলে ৫ টন চাল ও ১০ হাজার টাকা। বরাদ্ধ ঘোষণার সাথে সাথে জেলা কমলগঞ্জে ত্রাণ কার্যক্রম শুরু করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুল হক। তবে শুরু হয়নি অন্যদুটি উপজেলায়।

 


আরও পড়ুন